পুরাতন দলিল বের করুন খুব সহজে নিজের মোবাইল দিয়ে

পুরাতন দলিল বের করুন খুব সহজে নিজের মোবাইল দিয়ে ঘরে বসেই। পুরাতন দলিল বের করার নিয়ম সম্পর্কে অনেকেই ধারণা থাকে না। আজকে আমরা জানবো অনলাইনে পুরাতন দলিল কিভাবে বের করা যায়। 

পুরাতন দলিল বের করুন খুব সহজে নিজের মোবাইল দিয়ে

অনেকের দেখা যায় পুরাতন দলিল হারিয়ে যায় তখন পুরাতন দলিল তল্লাশি করার জন্য সঠিক পন্থা পান না। এজন্য আজকের আর্টিকেলটি তাদের সুবিধার্থেই তৈরি করা হয়েছে। মোবাইল দিয়ে পুরাতন দলিল বের করার উপায় শেয়ার করা হবে।

পেজ সূচিপত্রঃ পুরাতন দলিল বের করুন খুব সহজে নিজের মোবাইল দিয়ে

মোবাইল দিয়ে পুরাতন দলিল বের করার পদ্ধতি

পুরাতন দলিল বের করুন খুব সহজে নিজের মোবাইল দিয়ে। আপনারা যারা মোটামুটি তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক জ্ঞান রাখেন তারা সকলেই জানেন আপনারা খোঁজখবর নিলেই জানতে পারবেন যে বর্তমানে পুরাতন দলিল বিষয়ক কোন ইনফরমেশন জানার প্রয়োজন হলে ভূমি রেজিস্ট্রেশন অফিসে নাকি আপনি ঘরে বসেই তথ্য পেয়ে যাবেন। 

আপনার সময় বাঁচানোর জন্য বাংলাদেশ সরকার এই পদক্ষেপ গুলো গ্রহণ করেছে। যদিও এখন পর্যন্ত দলিল খুঁজে পাওয়ার জন্য যতটা অনলাইন ভিত্তিক সুবিধা প্রয়োজন ততটা আসেনি। দুটো বউ বাংলাদেশ সরকার যেহেতু পদক্ষেপ নিয়েছেন তাই আশা করা যাচ্ছে আগামী দশ বছরের মধ্যেই ধরনের দলিল বিষয়ক সমস্যার সমাধান আমরা অনলাইনে পেয়ে যাব।

কিন্তু বর্তমানে আপনার দলিল বিষয়ক কোনো সমস্যা বা দলিল বিষয় কোন ইনফরমেশনের প্রয়োজন হলে সেই সমস্যা সমাধান অনলাইনে পাওয়া যায়। অথবা আপনি যদি নাম দিয়ে জমি দলিল তৈরি করতে চান বাট ছোট ছোট প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয় তবে এসব ক্ষেত্রে আপনার রেজিস্ট্রেশন অফিসে গিয়ে সময় নষ্ট করার প্রয়োজন হবে না। 

মোবাইল দিয়ে পুরাতন দলিল বের করার নিয়ম আমরা জানলেও অনেকে বেশিরভাগই কম্পিউটারের দোকানে চলে যান কিন্তু এতে আপনার সময় কোনোভাবেই বাঁচবে না। তাই তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে নিজের ফোনে যদি আপনি ঘরে বসেই সমাধানগুলো করে ফেলতে পারেন তবে সেখানেই মুক্তি। 

আরও পড়ুনঃ ২০২৪ সালের বাংলা ইংরেজি ক্যালেন্ডার ও সরকারি ছুটি

কিন্তু এই সমাধানটা অনেকেই বুঝতে পারেন না তাই তাদের জন্যই পুরাতন দলিল বের করার নিয়ম ধাপে ধাপে দেখিয়ে দিয়েছি। এই ধাপগুলো প্রথমে আমরা আপনাকে বুলেটিং আকারে জানিয়ে দিচ্ছি।

  • প্রথমে আপনাকে যেকোনো একটি ব্রাউজারে যেতে হবে।
  • এরপর আপনাকে ভূমি মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। 
  • এরপর নাগরিক সেবার কর্নারে ক্লিক করতে হবে। 
  • এরপর আপনি সনদের আবেদনের প্রবেশ করবেন। 
  • সেখানে প্রবেশ করলে আপনার যদি নিবন্ধন করা না থাকে তবে আপনাকে জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার জন্ম তারিখ ও মোবাইল নম্বর দিয়ে নিবন্ধন সম্পন্ন করতে হবে। 
  • এরপর আবারো অপশনে ফিরে গিয়ে আপনি আপনার কাঙ্খিত তথ্য বিষয়ে আবেদন করতে পারবেন। তবে সেখানেও আপনাকে দলিল বিষয়ক বেশ কিছু তথ্য  দিয়ে তাদেরকে সাহায্য করতে হবে। 
  • এরপর পরের ধাপে আপনার পরিচয় পত্র স্ক্যান কপি দিতে বলা হবে।
  • এর পরে আপনি আপনার কাঙ্খিত তথ্য পেয়ে যাবেন। 
  • আপনার এই তথ্য প্রদানের জন্য আপনার কাছ থেকে বত্রিশ টাকা শরমত ফ্রি চাওয়া হবে। যা কিনা আপনাকে ধরনের অনলাইন ব্যাংকিং সেবা বিকাশ নগদ বা রকেট বা অন্য কোন মাধ্যমে পাঠাতে হবে। 
  • টাকা প্রদান সম্পন্ন হলে আপনাকে দলিলের অনলাইন অনলাইন কপি এর পিডিএফ শেয়ার করা হবে। যা আপনি ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

এই মুহূর্তে আপনাকে আমরা পুরাতন দলিল বের করার নিয়ম সম্পর্কে মোবাইল দিয়ে পুরাতন দলিল বের করার সিস্টেম ধাপে ধাপে দেখাবো। অনলাইনে পুরাতন দলিল বের করার জন্য যে কয়েকটি ধাপ আমাদের লক্ষ রাখতে হবে তার নিচে দেওয়া হলঃ

প্রথম ধাপঃ

প্রথমে আপনার ব্রাউজার অপশনে যাবেন এবং সেখান থেকে একটি ব্রাউজারে ওপেন করতে হবে। ভূমি মন্ত্রনালয়ের ওয়েবসাইট এ সার্চ দিবেন। এরপর আপনি ভূমি মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে ঢুকতে পারবেন।


দ্বিতীয় ধাপঃ

এই ধাপে আপনি ভূমি মন্ত্রণালয় ওয়েবসাইটে ঢুকবেন। এবং ঢোকার পর নিচেই দেখতে পারবেন নাগরিক সেবা কর্নার। এখানে আপনাকে মূলত ক্লিক করতে হবে।

তৃতীয় ধাপঃ

নাগরিক সেবা কর্নারে প্রবেশ করতে হবে। এবং আপনি কিছু অপশন দেখতে পারবেন। আপনি আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য বহুল অপশনে গিয়েই দলিল বিষয়ক তথ্য পেয়ে যাবেন। 


চতুর্থ ধাপঃ

আপনি যে অপশনেই যাবেন না কেন আপনাকে প্রথমেই নিবন্ধন করা আছে কিনা জিজ্ঞাসা করবে। নিবন্ধন করা না থাকলে আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ড নাম জন্ম তারিখ বিষয়ক ইনফরমেশন দিয়ে নিবন্ধন সম্পন্ন করবেন। 


পঞ্চম ধাপঃ

এরপর আপনাকে পুনরায় পূর্বের অপশনে ফিরে যেতে হবে।এবং আপনি যদি উদাহরণস্বর সনদে ক্লিক করেন তবে আপনাকে প্রথমেই দলিল বিষয়ক বেশ কিছু তথ্য দিতে হবে। এবং সেগুলো সম্পূর্ণভাবে সমাপ্ত করলেই পরবর্তীতে আবারো আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার দিতে হবে তাহলেই শেষ মুহূর্তে আপনি যেই ইনফরমেশন টি চাচ্ছেন তা চলে আসবে। তবে এর মাঝে আপনাকে অবশ্যই ফি জমা দিতে হবে।


 

ভূমি অফিসে গিয়ে পুরাতন দলিল তল্লাশি করার নিয়ম

পুরাতন দলিল তল্লাশি করার জন্য আমরা বর্তমানে তথ্য প্রযুক্তির সময় অনলাইনের মাধ্যমেই করতে পারি। কিন্তু কিছুদিন আগে পর্যন্ত বা এখনো কিছু মানুষ ভূমি অফিসে গিয়ে তল্লাশি কাজ করে থাকেন।সেক্ষেত্রে অফিসে গিয়ে পুরাতন দলিল বের করার নিয়ম বিষয়ে আমরা এখন আলোচনা করব।

প্রথমত দলিল তল্লাশি করতে হয় যখন দলিল হারিয়ে যায় এবং পরবর্তীতে কোন কারনে আপনার কোন জটিলতার জন্য বা মামলা মোকাদ্দমার জন্য প্রয়োজন পড়ে সেই সময় মূলত নতুন দলিল তুলতে হয়। তখন রেজিস্ট্রি অফিসে গিয়ে সার্টিফাইড দলিলের কপি তোলার জন্য আপনাকে আগে বুঝতে হবে যে দলির রেজিস্ট্রেশন কিভাবে করতে হয়।  

মূলত দলির স্টেশন বলতে দলিলের সব ধরনের ইনফরমেশন দিয়ে রেজিস্ট্রেশন অফিসে সার্টিফাইড কপি তৈরি করা হয়। এবং দলিল রেজিস্টেশন কমপ্লিট হলে পরবর্তীতে এটি বালাম বইয়ের লিপ্ত করা হয়। আবার বিভিন্ন তথ্য দিয়ে সূচিপত্র তৈরি করা হয়। 

দলিল যখন হারিয়ে যাবে এটা তল্লাশির ক্ষেত্রে আপনারা বালাম বইয়ের নাম্বার সূচিপত্র নাম্বার অথবা সূচিপত্রের নাম যেভাবে দলিল টি তৈরি করেছেন সেই পর্যাপ্ত ইনফরমেশন দিলে পরবর্তীতে আপনার দলিলটি তলাশি করে দেওয়া হবে। 

এক্সপার্ট রা সাধারণত সূচিপত্রের তল্লাশি করতে দেওয়াটাই বেশি সুযোগ্য মনে করেন। কারণ এতে শরীর খুব তাড়াতাড়ি খুঁজে পাওয়ার সম্ভাবনার দেখা দেয়। দলিল তলাশীর জন্য ফ্রি নির্ধারণ করা রয়েছে। সরকারিভাবে এই ফি যেকোনো সময় পরিবর্তন হয়ে যায়। তবে বর্তমানে ২০ টাকা ফি প্রযোজ্য। কিন্তু একাধিক বছরের তল্লাশীর ক্ষেত্রে এই ফি পরবর্তীতে ১৫ টাকা করে হয়ে থাকে।

অনলাইন ভিত্তিক পুরাতন  দলিল তল্লাশি করার নিয়ম

পুরাতন দলিল বের করুন খুব সহজে নিজের মোবাইল দিয়ে কিন্তু যদি পুরাতন দলিল হারিয়ে যায় রেজিস্টার করা না থাকে তবে পুরাতন দলিল তল্লাশি করার প্রয়োজন হয়ে পড়ে। আমরা কিছুক্ষণ আগে পুরাতন দলিল সরাসরি গিয়ে তল্লাশি করার নিয়ম জানলাম। কিন্তু আমরা এখন জানব মোবাইল দিয়ে পুরাতন দলিল বের করা বিষয়ে। অনলাইনে পুরাতন দলিল তল্লাশি দুই ভাবে করা যায়। 

মূল দলিল যদি আপনার কাছে থাকে তবে মূল দলিলের শেষ পাতায় আপনার দলিল সম্পর্কিত তথ্য যেমন কত সালে দলিলটি তৈরি কত নম্বর পৃষ্ঠায় বালাম করা আছে এবং রেজিস্ট্রি স্বাক্ষর তাছাড়াও জমির নাম্বার সহ বেশ কিছু তথ্য পেয়ে যাবেন। আর এইসব তথ্য দিয়েই নকল আরেকটি দলিল তৈরি করতে পারবেন। এক্ষেত্রে তল্লাশির প্রয়োজন হবে না। 

  • এখানে নির্দিষ্ট অংশে ক্লিক করলে অনলাইনে জমির দলিল সম্পর্কিত ওয়েবসাইট পেয়ে যাবেন। আপনার মোবাইলের নাম্বার এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে হবে। এরপর আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার এবং আপনার কাছে বিভাগ জেলা থানা মৌজা নম্বর দাগ নম্বর আরএস খতিয়ান ইত্যাদি ইনফরমেশন দিয়ে জমির মালিকের নাম এবং মালিকের পিতার নাম মিলিয়ে দেখা হবে। 
  • পরবর্তীতে আপনাকে ফি প্রদান করতে হবে যার মূল্য ৩২ টাকা। 
  • এবং এ ফি আপনাকে বিভিন্ন ব্যাংকিং সেবা বিকাশ নগদ রকেট বা অনলাইনের যেকোনো মাধ্যমে প্রদান করতে হবে।

মোবাইলে পুরাতন দলিল দেখার নিয়ম ২০২৪

পুরাতন দলিল বের করুন খুব সহজে নিজের মোবাইল দিয়ে ২০২৪ সালে দলিল বিষয়ক সমস্যা সমাধানে এই এক যুগান্তকারী সুবিধা। কিন্তু এই অনলাইনে পুরাতন দলিল দেখার জন্য প্রথমেই ব্যবস্থাগুলো হওয়ার প্রয়োজন ছিল তা বর্তমানে বাংলাদেশ সরকার সমাধান করতে পারেননি। 

মোবাইলে পুরাতন দলিল দেখার নিয়ম

অনলাইনের মাধ্যমে দলিলের সমাধান সম্পূর্ণভাবে না করা গেলেও কিছু দলিল ভিত্তিক তথ্য আমরা অনলাইন থেকেই পেয়ে যেতে পারি। এক্ষেত্রে ভূমি অফিসে গিয়ে দৌড়াদৌড়ি করার প্রয়োজন পড়ে না। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে তাদের অনলাইন ভিত্তিক জমির সমস্যার সমাধান এর উপায় এবং পদ্ধতি তারা উন্নত করে ফেলেছে। 

এখন তাদের সব ধরনের জমি বিষয়ক তথ্য দলিলসহ সবকিছুই অনলাইন এর সেবা দাঁড়া পূরণ করা সম্ভব। আমরা এ পথে আগাচ্ছি। যেহেতু আমাদের এই কার্যক্রমটি নতুন তাই এটি পুরোপুরি বাস্তবায়ন হতে এবং সব ধরনের দলিল অনলাইনে আনতে কিছুটা হলেও সময় লাগবে। আশা করা যায় আগামী দশ বছরের মধ্যে আমাদের ভূমি বিষয়ক সব ধরনের সমস্যার সমাধান আমরা অনলাইন থেকেই করতে পারব।

দলিল তল্লাশি বিষয়ে প্রশ্ন

মোবাইল দিয়ে কি পুরাতন দলিল খুঁজে পাওয়া সম্ভব?

মোবাইল দিয়ে পুরাতন দলিল খোঁজার বিষয়ে আমরা উপরে বেশ কিছু আলোচনা করেছি। আপনারা যদি উপরে তথ্যগুলো ভালো করে পড়েন তবে অবশ্যই প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন।

মোবাইল দিয়ে পুরাতন দলিল বের করার জন্য কত টাকা ফ্রি প্রয়োজন হয়? 

মোবাইল দিয়ে জমির দলিল বের করার জন্য ৩২ টাকা চার্জ ধরা হয়।

পুরাতন দলিল যদি হারিয়ে যায় তাহলে কি দলিল নতুন করে তোলা সম্ভব? 

হ্যাঁ পুরাতন দলিল হারিয়ে গেলে দলিল তল্লাশির জন্য আপনি অনলাইনে অথবা সরাসরি অফিসে গিয়েও আবেদন করতে পারবেন। 

বাংলাদেশের পুরাতন দলিল কিভাবে বের করা যায়?

বাংলাদেশে বর্তমানে পুরাতন দলিল ভুমি অফিসে গিয়েই তুলতে হয় কিন্তু অনলাইন থেকেও তোলা যেতে পারে। এই মুহূর্তে এই পদ্ধতি এখনো পুরোপুরিভাবে কার্যকর হয়নি যে আপনি আপনার পুরাতন দড়ির গুলা সহজে পেয়ে যাবেন। 

তবে বর্তমানে যারা দলিল লিখছেন তাদেরকে অবশ্যই অনলাইনে দলিল বিষয়ক ফরম পূরণ করে রাখতে হয় যার কারণে দশ বছর পর দলিল বিষয়ক সব ধরনের জটিলতা মুক্ত হবে।

নাম দিয়ে জমির দলিল তৈরি করার অনলাইন ভিত্তিক পদ্ধতি

পুরাতন দলিল বের করুন খুব সহজে নিজের মোবাইল দিয়ে এমনকি নাম দিয়ে জমির দলিল তৈরি করার উপায় ও অনলাইনের মাধ্যমেই করা সম্ভব। সফলভাবে নাম দিয়ে জমিদুলি তৈরি করার ধাপগুলো উল্লেখ করা হলো। 

  • প্রথমেই ভূমি মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে যেতে হবে।  
  • এরপর ই নামজারি অপশনে আবেদন করতে হবে। 
  • আপনার মোবাইল নম্বর এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে প্রবেশ করতে হবে। 
  • প্রবেশ করলে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের নম্বর এবং মোবাইল একটি ওটিপি আসবে সেগুলো সঠিকভাবে দিতে হবে। এরপর আপনার জমি বিষয়ক সব ধরনের তথ্য যা হবে যার সঠিকভাবে পূরণ করতে হবে। 
  • পরবর্তীতে আপনার ৭০ টাকা ফি প্রদান  করতে বলা হবে।
  • আবেদন করার দিনের মধ্যে আপনার এর কাছে একটি এসএমএস আসবে সেখানে আপনার নাম দিয়ে জমির দলিলটি সংগ্রহ করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হবে।
  • এসএমএসে আপনার জন্য নির্দিষ্ট লিংক প্রদান করা হবে এবং এই লিংকে যাওয়ার পর আবারো নির্ধারিত ১১০০ টাকা ফ্রি প্রদান করতে হবে। 
  • এবং শেষে আপনি আপনার জমি দলিলটি সংগ্রহ করতে পারবেন। 

এ বিষয়ে ভূমি মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে আরও বিস্তারিত এখানে জানা যাবে।

দলিল বা খতিয়ান এর পরিচিতি 

পুরাতন দলিল বের করুন খুব সহজে নিজের মোবাইল দিয়ে আমরা এই আর্টিকেলের থেকে পুরাতন দলিল সংগ্রহ করার বেশ কিছু তথ্য জানলাম। কিন্তু দলিল কি এ বিষয়ে আমরা কতটুকু জানি? দলিল হচ্ছে কোন জমির বৈধ মালিকানা সত্তাকে বোঝায়। 

যেকোনো জমির মালিক প্রমাণের জন্য জমির দলিল এ তার নাম এবং স্বাক্ষর ছাড়াও সাক্ষীদের স্বাক্ষর থাকা বাধ্যতামূলক। আপনার জমির দলিল যতক্ষণ আপনার কাছে আছে ততক্ষণ আপনি সেই জমির মালিক হবেন। আপনার কাছে দলিল না থাকলে জমি আর আপনার থাকবে না।

দলিল এর প্রয়োজনীয়তা

দলিলের প্রয়োজনীয়তা কি পর্যায়ে তা এক কথায় বলা সম্ভব না। আপনার কোন জমি যা আপনি উত্তরাধিকার সূত্রে পেয়েছেন অথবা আপনি ক্রয় করেছেন বা আপনি সম্পর্ক সূত্রে পেয়েছেন আর যদি আপনার হাতে দলিলটি না থাকে তবে আপনি কখনোই এই জমির মালিক বলে গণ্য হবেন না।  

দলিল এর প্রয়োজনীয়তা

দলিল একটি প্রমাণ যা আপনার সম্পদের সুরক্ষার জন্য প্রয়োজন হয়। বর্তমান সরকার দলিল বিষয়ক ২০২৩ সালে একটি ভূমি আইন প্রণয়ন করেন যেখানে বলা হয়েছে দলিল যার জমি তার। আর এ থেকেই বোঝা যায় যে দলিলের গুরুত্ব কতটা বেশি। দলিল খুবই প্রয়োজনীয় একটা জিনিস।

দলিল যার জমি তার বিল ২০২৩ 

পুরাতন দলিল বের করুন খুব সহজে নিজের মোবাইল দিয়ে এখানে আমরা দলিলের প্রয়োজনীয়তা এবং গুরুত্ব সম্পর্কে অবগত হয়েছি। আমরা জানতে পারি ভুমি মন্ত্রণালয় একটি আইন পাশ করা হয়েছে যেখানে বলা হয়েছে দলিল যার জমি তার। এই বিল পাস করার মাধ্যমে সাধারণ নাগরিকদের দীর্ঘদিনের সমস্যার সমাধান হয়েছে।  

আগে জমির দলিল থাকলেও এর কারণে যে কেউ অন্যের জমির মালিক হয়ে যেতে পারত। কিন্তু এখন দলিল দেখালেই অন্যজন এই জমির বুক দখল করতে পারবে না। এতে করে অনেক নাগরিক জমি দখলদারের হাত থেকে মুক্তি পাবেন। কিন্তু এই আইনের কারণে বেশ কিছু ক্ষতি সাধনা হচ্ছে। যেমন এই আইনের ফলে জাল দলিলের পরিমাণ বৃদ্ধি পাচ্ছে।  সাথে সাথে দুর্নীতির রাস্তাও তৈরি হয়ে যাচ্ছে। 

পুরাতন দলিল বের করার বিষয়ে কিছু প্রশ্ন

দলিল তল্লাশির জন্য কোথায় যেতে হবে?

দলিল তলাশীর জন্য দলিল রেজিষ্টেশন অফিসে যেতে হয়। রেজিস্ট্রেশন অফিসে নির্দিষ্ট ফি জমা দেওয়ার পরই তল্লাশি করে আপনার সার্টিফাইড কপি বের করে দেওয়া হবে।

পুরাতন দলিল বের করার প্রয়োজনীয়তা কি? 

আপনার দলিল কোন কারনে হারিয়ে গেলে বা আপনার পরিবারের কেউ মারা গেলে বা কোন সদস্য যোগ হলে এমত অবস্থায় পরিবর্তন করার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। সম্পত্তি বন্টনের সময় ও প্রয়োজন হয়। এক্ষেত্রে প্রমাণস্বরূপ পুরাতন দলিল এ মালিক কারা আছেন এবং প্রয়োজনে মালিকের পরিবর্তন করার প্রয়োজন হয়ে থাকে। 

তাই এসব কারণেই সঠিক সরকারি তথ্যবহুল কাগজটি হচ্ছে আপনার দলিল। তাই এটি কাছে রাখা বা হারিয়ে গেলে বের করা খুবই জরুরী।

সরাসরি ভূমি অফিসে গিয়ে জমির দলিল সংক্রান্ত কাজের জন্য কত দিন সময় লাগতে পারে? 

বিভিন্ন কারণে বাংলাদেশের ভূমি বিষয় দলিলের কাজের জন্য দেখা যায় অনেকদিন সময় নষ্ট হয়। নির্দিষ্ট কোন সময় উল্লেখ করা থাকে না। সাধারণত এক মাস থেকে এক বছর সময়ও লেগে যেতে পারে।

দলিল বিষয়ক  তথ্য বা  সমস্যা সমাধানের জন্য কোন মন্ত্রণালয় কাজ করে? 

দলিল বিষয়ক সমস্যার জন্য ভূমি মন্ত্রণালয় কাজ করে থাকে।

পুরাতন দলিল বের করুন খুব সহজে নিজের মোবাইল দিয়ে এ বিষয়ে লেখকের মন্তব্য

আমরা আজ এই আর্টিকেল থেকে জানতে পারলাম পুরাতন দলিল বের করুন খুব সহজে নিজের মোবাইল দিয়ে। দলিল খুবই একটি গুরুত্বপূর্ণ কাগজ যা আমাদের সম্পত্তি বিষয়ক সঠিক তথ্য বা প্রমাণ। আজকে আপনারা জানতে পারলেন মোবাইলের সাহায্যেই দলিল বিষয়ক বেশ কিছু কাজ ঘরে বসে করা যায় যা সময় ও শ্রম দুটিই বাঁচাই। 

ঘরে বসেই কি করে খুব সহজ উপায়ে পুরাতন দলিল হাতে পাওয়া যায় সে ব্যাপারে আমাদের একটি বিস্তারিত ধারণা হলো। আশা করি আজকের এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনারা ভবিষ্যতে দলিল বিষয়ে কোনো সমস্যা হলে ভূমি অফিসে বারবার দৌড়াদৌড়ি না করে ডিজিটাল উপায়ে অনলাইনে ঘরে বসেই আপনার কাঙ্খিত দলিল বিষয়ক তথ্য পেয়ে যাবেন। 2024112  

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url