প্রতি সপ্তাহে 4000 টাকা পর্যন্ত আয় করুন ২৫টি কার্যকরী উপায়ে

বর্তমান সময়ে প্রতি সপ্তাহে 4000 টাকা পর্যন্ত আয় করার স্বপ্ন প্রত্যেকেই দেখেন বিশেষ করে শিক্ষার্থী এবং যারা বেকার অবস্থায় ঘরে বসে থাকেন। কিন্তু কিভাবে টাকা আয় করা সম্ভব সেটা অনেকেই জানেন না। খুব সহজ উপায়ে আমরা প্রতি সপ্তাহে পর্যাপ্ত আয় করতে পারি। 

প্রতি-সপ্তাহে-4000-টাকা-পর্যন্ত-আয়-করুন

আপনি যদি সম্পূর্ণ লেখা পড়ে দেখেন তাহলে বুঝতে পারবেন কিভাবে প্রতি সপ্তাহে টাকা আয় করা সম্ভব। আমরা এখানে ২৫ টি উপায় ছাড়াও আরো কিছু সহজ পদ্ধতি দেখিয়েছি যা আপনাদের সহজেই টাকা আয় করার পদ্ধতি শেখাবে। তাহলে চলুন কথা না বাড়িয়ে প্রতি সপ্তাহে আয় করার পদ্ধতি জেনে নেই।

পেজ সূচিপত্রঃ প্রতি সপ্তাহে 4000 টাকা পর্যন্ত আয় করার ২৫টি কার্যকরী উপায়

প্রতি সপ্তাহে 4000 টাকা আয় করার ২৫টি কার্যকরী উপায়

সহজ পদ্ধতিতে প্রতি সপ্তাহের চার হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করার জন্য নিচে ২৫ টি উপায় দেখানো হয়েছে।  উল্লেখ্য উপায় গুলো হচ্ছে,

০১। ব্লগ পোস্ট লিখে প্রতি সপ্তাহে টাকা আয়

প্রতি সপ্তাহে 4000 টাকা পর্যন্ত আয় করার জন্য ব্লক পোস্ট লেখা একটি জনপ্রিয় অনলাইন মাধ্যম। নিজের ওয়েবসাইট খুলে সেখানে বিভিন্ন বিষয়ের সম্পর্কে  লেখাকেই ব্লগিং বলে। নিজের ছাড়াও অন্যের ওয়েবসাইটে লিখেও ইনকাম করা সম্ভব। এভাবে প্রতি সপ্তাহে অনেক বড় এমাউন্টের টাকা আয় করা সম্ভব। 

০২। ভিডিও এডিট করে টাকা আয়

ভিডিও এডিট করেও একইভাবে টাকা আয় করা সম্ভব। নিজের ভিডিও এডিট করে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে দিয়ে সেল করা যায়। আবার অন্যের ভিডিও এডিট করে টাকা ইনকাম করা সম্ভব। তাছাড়া ভিডিও এডিট এর সাথে যদি বিজ্ঞাপন যুক্ত করে দেওয়া যায় তবে আরও এক্সট্রা ইনকামের সম্ভাবনা রয়েছে।

০৩। ইউটিউব ভিডিও তৈরি করে আয়

বর্তমানে ইউটিউব একটি অনেক প্রিয় মাধ্যম। প্রত্যেকেই ইউটিউবে কিছু না কিছু ভিডিও দেখেন। তাই নিজের একটা অ্যাকাউন্ট ক্রিয়েট করে ভিডিও দেওয়া শুরু করলে অবশ্যই মনিটাইজেশন এর পরে ইনকাম হবে। তাছাড়া ইউটিউব ভিডিওতেও আলাদা ভাবে বিজ্ঞাপন এড করলে অতিরিক্ত ইনকামের সুবিধা আছে।

০৪। ফেসবুক থেকে টাকা আয়

ফেসবুক থেকে সহজ উপায়ে টাকা আয় করার পদ্ধতি বলে শেষ করা যাবে না। ফেসবুকে অনেকে পেজ খুলে প্রোডাক্ট সেল দিয়ে অথবা কিছু লিখে লাইক, শেয়ার ও কমেন্ট এর সাহায্যে অনেক টাকা ইনকাম করছে। এছাড়া ফেসবুকে রিয়েল প্রডাক্টও বিক্রি করার জন্য মার্কেটপ্লেস রয়েছে।

০৫। আউটসোর্সিং করে টাকা আয়

আউটসোর্সিং হচ্ছে এমন এক প্রক্রিয়া যেখানে ফ্রিল্যান্সারদের কে কাজ করতে দেওয়ার একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করে দেয়। এখানে আলাদাভাবে দক্ষতার প্রয়োজন পড়ে না। কিন্তু আউটসোর্সার দের সকল বিষয়ে অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। ম্যানেজমেন্ট বিষয়ে জ্ঞান থাকতে হবে। 

০৬। পেইড কোর্স বানিয়ে আয়

ফ্রিল্যান্সিং বা আউটসোর্সিং এর জন্য অথবা বিভিন্ন ধরনের অনলাইন থেকে আয় করতে যে দক্ষতা গুলোর দরকার সেই বিষয়গুলা বোঝানোর জন্য বা শেখানোর জন্য কেউ কেউ ভিডিও বা ব্লগ বানিয়ে সেল করেন। এই কোর্স গুলা পরবর্তীতে শিখে অন্যরা সহজ উপায়ে টাকা আয় করার পদ্ধতি শিখতে পারেন।

০৭। ডিজাইন কাস্টমাইজেশন এর মাধ্যমে আয়

বিভিন্ন প্রোডাক্ট বা শার্ট এর উপর অনেকেই তাদের পছন্দমত ডিজাইন দিতে চান। সে ক্ষেত্রে অনেক ওয়েবসাইট আছে যেখানে খুব সহজেই এই ডিজাইনটা তৈরি করে শার্টের উপর বসিয়ে দেওয়া যায় এবং সেটা পরবর্তীতে শার্টের উপর প্রিন্ট হয়ে বের হবে। শুধু শার্ট না অন্য কাস্টমাইস করা গ্লাস বা ক্রেস ইত্যাদি অনেক কিছুর উপরেই এই কাজটা হয়ে থাকে।  

০৮। ডিজিটাল মার্কেটিং করে আয়

ডিজিটাল মার্কেটিং এক ধরনের পণ্যের প্রচারণা। আমরা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া ইমেইল মার্কেটিং এ সার্চ ইঞ্জিনে যে প্রচারণা গুলা দেখি সেটাই ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি ধরন। মূলত পণ্যের মার্কেট ভ্যালু বাড়ানোর জন্য মানুষের কাছে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য সব জায়গায় বিজ্ঞাপন ব্যবস্থা কেই ডিজিটাল মার্কেটিং বলে।

০৯। গ্রাফিক ডিজাইন করে আয়

ফ্রিল্যান্সিং এর মধ্যে গ্রাফিক্স ডিজাইন একটি খুবই চাহিদা সম্পন্ন ও জনপ্রিয় একটি দক্ষতা। কারণ এই কাজটি শিখে খুব সহজেই অনেক কাজ পাওয়া যায় এবং ইনকাম করা সম্ভব হয়। গ্রাফিক্স ডিজাইনের চাহিদা যেহেতু দিন দিন বাড়ছে তাই এর মার্কেট প্লেস ও অনেক বড় হচ্ছে।

১০। ওয়েবসাইট ডিজাইন করে আয়

বর্তমান সময়ে ওয়েবসাইট ডিজাইন করে অনেক ভালো টাকা ইনকাম করা সম্ভব। কারণ একটা ওয়েবসাইটের ভেতরে অনেক ধরনের অনলাইন ভিত্তিক কাজ রয়েছে এই ওয়েবসাইটের কাজ করে যেমন অনেক ইনকাম করা সম্ভব তেমনি ওয়েবসাইট ডিজাইন করেও একটা ভালো এমাউন্ট প্রতি সপ্তাহে নিজের পকেটে আশা সম্ভব।

১১। ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট খুলে  টাকা আয়

ইনস্টাগ্রামে বিনামূল্যে একাউন্ট খুলে ফেসবুকের মত খুব সহজেই টাকা ইনকাম করা যায়। বর্তমানে পৃথিবীতে ১০ লাখেরও বেশি মানুষ ইনস্টাগ্রাম ব্যবহার করছে। দেশ বিদেশের বিভিন্ন প্রোডাক্ট সেল করে ইনিস্টাগ্রাম থেকে টাকা আনতে পারবেন। আবার এখানেও বিজ্ঞাপনের সুব্যবস্থা রয়েছে যেখান থেকে টাকা আনার সুবিধা আছে। 

১২। টিকটক থেকে আয়

টিকটক একটি ভিডিও মাধ্যম। এটি ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে মতো জনপ্রিয়। বর্তমানে এই প্লাটফর্মেও টাকা ইনকাম করা সহজ হয়ে উঠেছে। ইনফ্লুয়েন্সাররা প্রোডাক্ট নিয়ে এসে প্রোডাক্টের রিভিউ দিয়ে মানুষকে প্রোডাক্ট কিনতে আকর্ষণ করছে।

১৩। এসইও থেকে ইনকাম আয়

এসইও বা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজ এমন একটি আয় করার মাধ্যম যেটা কিনা বিশ্বজুড়ে খুবই সমাদৃত এবং চাহিদা সম্পন্ন। এসইও বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করতে পারলে ভবিষ্যতে সপ্তাহেই ৪ হাজার টাকারও বেশি আয় করা যাবে। এসইও মূলত সার্চ ইঞ্জিনে চাহিদা সম্পন্ন জিনিসটাকে খুঁজে বের করার প্রসেস। 

১৪। কপিরাইটিং করে আয় করার উপায়

কপিরাইটিং হল এক ধরনের প্রোডাক্টের প্রমোশনের লেখালেখির কাজ। কোন একটি প্রোডাক সম্পর্কে সবাইকে জানানোর ও বিক্রির জন্য লিখিতভাবে যে প্রোমোশন করা হয় তাকে কপিরাইটিং বলে। পরবর্তীতে প্রোডাক্টের এই লেখা বিভিন্ন গণমাধ্যমে সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করে প্রোডাক্ট সম্পর্কে ভালো রিভিউ পাওয়া যাবে এবং প্রোডাক্ট কিনতে মানুষ উদ্বুদ্ধ হবে।

১৫। ডাটা এন্ট্রি করে আয় করার সুযোগ

ডাটা এন্ট্রি মূলত বিভিন্ন বিষয়কে কম্পিউটারাইজড ফরম্যাটে পরিবর্তন করে সংরক্ষণ করা পদ্ধতি। এর ফলে ওই বিষয় সম্পর্কে পূর্ণ তথ্য কম্পিউটারে থেকে যাবে। এই কাজটা ঘরে বসেও করা যায় অথবা খুব সহজে ফোনেও কাজটা করে ইনকাম করা যায়। এটা ফ্রিল্যান্সিংয়ের জন্য খুব জনপ্রিয় একটি সাইট।

১৬। ইউ আই ডিজাইন করে টাকা আয়

ইউ আই ডিজাইন হচ্ছে একটা প্রোডাক্ট এর একটা ভবিষ্যৎ চিত্র সামনে উপস্থাপন করে ক্লাইন্টকে বোঝানো। এই কাজটা শেখার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ দক্ষতা লাগবে এবং অনেক স্কিল এর উপর অভিজ্ঞ হতে হবে। কোন ওয়েবসাইট ব্যবহারের সময় ব্যবহারকারী হিসেবে যে ইন্টারফেসটা আমরা ব্যবহার করছি সেটাই ইউজার ইন্টারফেস।

১৭। ট্রান্সলেটিং ইস্কিল ব্যবহার করে আয়

ট্রান্সলেটিং বা অনুবাদ করে অনেক সহজেই টাকায় ইনকাম করা যেতে পারে। বিভিন্ন প্লাটফর্মে এই কাজ করে বেশ ভালো একটা টাকা প্রতি সপ্তাহেই আয় করা সম্ভব। তাছাড়া অফলাইনেও অনেক প্রতিষ্ঠানে ট্রান্সলেটর হিসেবে অনেকে দায়িত্বরত রয়েছে। অনেক অনেক ওয়েবসাইট বা প্রতিষ্ঠানেও তাদের প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে জানানোর জন্য বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদের প্রয়োজন পড়ে। 

১৮। ভার্চুয়াল অ্যাসিস্টেন্সি করে আয় করার নিয়ম

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বা অনলাইন বিজনেস বা সংগঠনে ক্লায়েন্টের উত্তর দেওয়ার জন্য, ডাটা কপি করার জন্য বা এন্ট্রি করার জন্য, ফাইল কম্পোজ করার জন্য ভার্চুয়ালি যারা এই দায়িত্বে থাকেন তাদেরকে ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট বলা হয়। একজন ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্টকে অবশ্যই অফিসের সহযোগিতা বিষয়ক সব ধরনের ধারণা থাকতে হবে।

১৯। অনলাইন সার্ভে করে আয়

অনলাইন সার্ভে হচ্ছে একটি ছোটখাটো সার্ভে যার মাধ্যমে বিভিন্ন রকম ওয়েবসাইটে গিয়ে কিছু ছোট ছোট লিখে বা প্রশ্নের উত্তর দিয়ে আসা, এর মাধ্যমে কিছু এমাউন্ট ইনকাম করা সম্ভব। বাংলাদেশের জন্য এটা খুব একটা জনপ্রিয় ইনকাম সোর্স না। তবে বিদেশের জন্য চাহিদা সম্পন্ন কাজ। বিদেশের বিভিন্ন ওয়েবসাইটে গিয়ে চাইলে আপনি কাজটা করে বিদেশি টাকা উপার্জন করে আসতে পারেন।

২০। টিউশন করে আয়

শিক্ষার্থীদের জন্য খুব সহজেই সপ্তাহে ৪০০০ টাকা পর্যন্ত আয় করার সহজ একটা উপায় হচ্ছে টিউশন। প্রতি সপ্তাহেই তিন থেকে চার দিন টিউশনি করে ভালো টাকা আয় করা সম্ভব হয়। এতে আলাদা করে কোন দক্ষতার প্রয়োজন পড়ে না। নিয়মিত পড়াতে যাওয়া আর ঠিক মত নিজের জ্ঞানকে স্টুডেন্ট এর কাছে উপস্থাপন করতে পারাই এই কাজের প্রধান লক্ষ্য।

২১। ছবি তুলে আয় করার নিয়ম

অনেকেই আছেন যারা ছবি তুলতে পছন্দ করেন। তারা চাইলেই ছবি তুলে একটু এডিটিং করে একটা ছোটখাটো ব্যবসা দার করিয়ে দিতে পারেন। এক্ষেত্রে একটা সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম তাকে সাহায্য করতে পারে তার ক্রিয়েটিভিটি গুলো উপস্থাপন করার মাধ্যমে। সোশ্যাল মিডিয়ায় অন্যরা ছবিগুলো দেখে আগ্রহী হয়ে তার কাছে ছবি তোলার জন্য যেতে পারে।

২২। রিসেলিং ব্যবসা করে আয়

রিসেলিং ব্যবসা ভালো অনলাইন বা অফলাইন ব্যবসা হতে পারে। রিসেলিং মূলত এমন একটি ব্যবসা যার মাধ্যমে কম টাকায় প্রোডাক্ট কিনে বেশি টাকায় বিক্রি করা যায়। এক্ষেত্রে বেশি জিনিস একবারে কিনে যদি পরে সেল দেয় তাহলে অনেক টাকা লাভ। এক্ষেত্রে সুবিধা হচ্ছে ক্যাপিটাল যদি কম থাকে তাহলেুও খুব সহজেই ব্যবসা করতে নেমে পড়া যায়। এক্ষেত্রে গুণগত মান সম্পন্ন প্রোডাক্ট পাওয়ার জন্য সরাসরি উৎপাদক সংস্থা থেকে পণ্য কিনে ভালো টাকায় বিক্রি করা যেতে পারে। 

২৩। মোবাইল সার্ভিসিং থেকে আয়

বিভিন্ন মোবাইল অপারেট অপারেটিং প্রতিষ্ঠানে দেখা যায় মোবাইল সার্ভিসিং এর জন্য লোক থাকেন।  মোবাইল সম্পর্কে পূর্ণ দক্ষতা এবং সার্ভিসিং করার অভিজ্ঞতা থাকলে অবশ্যই এই কাজে নেমে পড়া যেতে পারে এবং খুব সহজেই সপ্তাহে টাকা ইনকাম করা সম্ভব।

২৪। ফ্লেক্সিলোড করে আয়

কম টাকায় সহজেই ছোট পরিসরে শুধু সিম কিনে এই ব্যবসা শুরু করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে সিম কম্পানির সাথে কানেক্টেড থেকে তাদের নিয়ম অনুযায়ী হাজারে কিছু  টাকা কমিশন পেতে পারবেন। এভাবে দেখা যায় যদি হাজারে ৩০ টাকাও ইনকাম হয় তাহলে সপ্তাহে আরো কিছু কমিশন সহ চার হাজার থেকে ছয় হাজার টাকা ইনকাম করা যেতে পারে। 

২৫। পশুপাখি পালন করে আয়

অনেক ছেলেরা চাকরি না করে নিজের এলাকায় খামার তৈরি করে, পশু পালন করে পরবর্তীতে গরু ছাগলের, মাংস বা দুধ বিক্রি করে লাখ টাকা ইনকাম করছেন। এটা অনেক বড় একটা কায়িক শ্রম এর কাজ।

মেয়েদের জন্য ঘরে বসে টাকা আয় করার উপায়

প্রতি সপ্তাহে 4000 টাকা পর্যন্ত আয় করার অনেক উপায় মেয়েদের জন্য রয়েছে। মেয়েদের জন্য সব সময় ঘরের বাইরে গিয়ে কাজ করা সম্ভব না। তাই যদি তাঁরা ঘরে বসেই আয় করার সুযোগ পায় তাহলে মেয়েরাও স্বাবলম্বী হয়ে উঠতে পারবেন। আমরা এখানে মেয়েদের স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য বেশ কিছু উপায় নিয়ে আলোচনা করতে পারি।   

মেয়েদের-জন্য-ঘরে-বসে-টাকা-আয়-করার-উপায়

  • মেয়েরা বাড়ির চারপাশে পশু পাখি  পালন করে, পরবর্তীতে এদের বাচ্চা বা ডিম বিক্রি করে ইনকাম করতে পারেন।  এক্ষেত্রে পশু পাখির প্রতি যত্নবান থাকা জরুরী।
  • ঘরে বসে সেলাই মেশিন দিয়ে কাজ করে ইনকাম করতে পারেন।
  • বাড়ির আশেপাশে শাকসবজি লাগিয়েও পরবর্তীতে সেই শাক সবজি বিক্রি করেও আয় করা সম্ভব।
  • অথবা আমরা উপরে উল্লেখিত যে ২৫ টি ইনকামের পদ্ধতি জানলাম এর মধ্যে অনলাইন ভিত্তিক, খুব সহজ উপায়ে টাকা আয় করার পদ্ধতি জেনে মেয়েরাও ছেলেদের পাশাপাশি স্বাবলম্বী হতে পারেন।
  • মেয়েরা যদি বাইরে যেতে না পারেন তাহলে ঘরে বসেই টিউশনি করিয়ে ইনকামের ব্যবস্থা চালু রাখতে পারেন।
  • মেয়েদের টাকা ইনকামের জন্য আরও একটি সহজ উপায় হচ্ছে পার্লারের কাজ শেখা। অনেক মেয়েরা চাইলেই কাজ শিখে দক্ষতা অর্জন করতে পারেন এবং ঘরে বসে আউটসোর্সিং করেও এ কাজগুলোর মাধ্যমে টাকা উপার্জন করতে পারেন।

প্রতি সপ্তাহে টাকা আয় করার সহজ মাধ্যম

প্রতি সপ্তাহে 4000 টাকা পর্যন্ত আয় করার সহজ দুই ধরনের মাধ্যম রয়েছে। 

অনলাইন ভিত্তিক কাজঃ এক্ষেত্রে ইলেকট্রনিক ডিভাইস লাগবে যা কিনা কম্পিউটার বা মোবাইল ফোনও হতে পারে। ভালো নেট কানেকশন প্রয়োজন। ভালো পরিবেশ থাকতে হবে কাজ করার জন্য।  যে কাজ করতে চায় সে ব্যাপারে দক্ষতা অর্জন করতে হবে।

অফলাইন ভিত্তিক কাজঃ কায়িক পরিশ্রম করার ক্ষমতা থাকতে হবে। মেধাবৃত্তিক হতে হবে।  সৃজনশীল হতে হবে। ভালো নেটওয়ার্কিং থাকতে হবে। নির্দিষ্ট কাজের জন্য দক্ষ হতে হবে।

ফ্রিল্যান্সিং করে সপ্তাহে সর্বোচ্চ কত টাকা আয় করা যায়

ফ্রিল্যান্সিং বর্তমান সময়ে অনলাইন থেকে আয়ের একটি সর্বোচ্চ ব্যবহৃত পদ্ধতি।  এখানে আপনি অভিজ্ঞতার সাহায্যে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। তবে কাজ করার জন্য আগে অবশ্যই আপনি যে কাজটা করতে যাচ্ছেন সে বিষয়ে  দক্ষতা অর্জন করতে হবে।

এই দক্ষতা কোন অনলাইন থেকে বা প্রতিষ্ঠান থেকে ফ্রি কোর্স করে শিখতে হবে। ফ্রিল্যান্সিং একটা প্ল্যাটফর্ম যেখানে শুধু একটা কাজ না অনেকগুলো অনেক ধরনের কাজ রয়েছে আপনি যেটা পছন্দ করবেন এর উপর আপনি ইনকাম করতে পারবেন।  বর্তমান যুগে ফ্রিল্যান্সিং করে প্রতিমাসে অনেক মানুষ লাখ লাখ টাকা ও ইনকাম করে আসছেন। 

আরও পরুনঃ কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং একাউন্ট খুলব কোন অভিজ্ঞতা ছাড়াই

ফ্রিল্যান্সিং করে অনলাইন থেকে আয় করার জন্য আপনাকে অবশ্যই অনেক পরিশ্রম করতে হবে।  সহজ উপায়ে টাকা আয় করার পদ্ধতি অনেক রয়েছে শুধু কাজে লেগে থাকতে হবে। ফ্রিল্যান্সিংয়ে আপনি যেকোনো সময়েই কাজে বসতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনাকে অফিসের মত নির্ধারিত সময়ের  মধ্যে কাজ করা লাগবে না।  

সহজ উপায়ে টাকা আয়ের অনলাইন ভিত্তিক সেরা সাইট

প্রতি সপ্তাহে 4000 টাকা পর্যন্ত আয় করার জন্য অনলাইন ভিত্তিক যে সাইডগুলো খুবই জনপ্রিয় সেগুলো নিচে উল্লেখ করা হলো।

সহজ-উপায়ে-টাকা-আয়ের-অনলাইন-ভিত্তিক-সেরা-সাইট

  • ইউটিউব
  • গুগল এডসেন্স 
  • আপ ওয়ার্ক
  • ফাইবার 
  • ফেসবুক
  • মেগাটাইপ 
  • গুগল ওপেনিং রিওয়ার্ড

ফোনের অ্যাপ থেকে টাকা আয় করার পদ্ধতি

ফোনের অ্যাপ থেকে প্রতি সপ্তাহে 4000 টাকা পর্যন্ত আয় করার কিছু পদ্ধতি নিয়ে আমরা আলোচনা করতে পারি। মূলত সবার কাছে কম্পিউটার বা ল্যাপটপ কেনার সামর্থ্য না থাকলেও সামান্য ফোন দিয়েও কিছু ইনকামের জন্য অ্যাপস নামিয়ে নিতে পারেন।  

  • সপ আপ  রিসেলার অ্যাপ 
  • উবার ড্রাইভার অ্যাপ 
  • নগদ অ্যাপ 
  • বিকাশ এপস 
  • মাই পয়েন্ট এপ্স 
  • পকেট মানি অ্যাপস

দক্ষতা ছাড়াই প্রতি সপ্তাহে টাকা আয়

প্রতি সপ্তাহে 4000 টাকা পর্যন্ত আয় করার জন্য কিছু পদ্ধতি রয়েছে যেগুলোদ্বারা দক্ষতা ছাড়াই ইনকাম করা সম্ভব। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য একটা পদ্ধতি হচ্ছে মাইক্রো জব। মূলত আপনাকে এ কাজ করার জন্য খুব একটা দক্ষ হতে হবে না। কাজগুলো অনেক ছোট ছোট হয়ে থাকে।  

  • লাইক কমেন্ট দিয়ে টাকা আয় করতে পারবেন 
  • পোস্ট শেয়ার করে আয় করার 
  • অ্যাপ ইনস্টল দিয়ে আয় করা 
  • অন্যের ওয়েবসাইট ভিজিট করে আয় 
  • ভিডিও দেখে কিংবা গেম খেলে আয় 
  • মাইক্রো জব এর কিছু ওয়েবসাইট, 
  • গিগ বাক্স 
  • ক্লিক ওয়ার্কার 
  • জার্ক 
  • টাস্ক রেবিট 
  • অ্যাপেন
  • ফিল্ড এজেন্ট 
  • গিগ ওয়াক

প্রতি সপ্তাহে অনলাইন থেকে আয় করা টাকা তোলার নিয়ম

প্রতি সপ্তাহে 4000 টাকা পর্যন্ত আয় করে সেই টাকা তোলার জন্য কিছু মাধ্যম রয়েছে। এইসব মাধ্যমে বিদেশ থেকে ডলার ইনকাম করলে টাকা গ্রহণ করতে পারবেন। আবার পেমেন্ট বাংলাদেশী কোন এপস এ  কনভার্টও করা যেতে পারে যেমন বিকাশ,  নগদ ইত্যাদি।

উল্লেখযোগ্য এমন প্লাটফর্ম অনেকগুলোই রয়েছে এরমধ্যে পেওনিয়ার একটি। সহজ পদ্ধতিতে পেওনিয়ার একাউন্ট খোলার নিয়ম বাংলাদেশ ২০২৪ এ আপনারা খুব সহজেই এ বিষয়ে বিস্তারিত ধারণা পেয়ে যাবেন। 

টাকা আয় করা বিষয়ে বিশেষ প্রশ্ন

টাকা আয় করার নিয়ম সম্পর্কিত বেশ কিছু প্রশ্ন সবার মধ্যেই থাকে। এর মধ্যে কিছু উল্লেখযোগ্য প্রশ্ন নিচে আলোচনা করা হলো, 

প্রশ্নঃ ফ্রিল্যান্সিং এবং আউটসোর্সিং কি একই জিনিস? 

উত্তরঃ না ফ্রিল্যান্সিং হচ্ছে  কিছু দক্ষতার সমষ্টি। এবং আউটসোর্সিং হচ্ছে এই দক্ষতা গুলোর প্ল্যাটফর্ম।

প্রশ্নঃ কিভাবে আমি নিজের আয় বাড়াতে পারি? 

উত্তরঃ দক্ষতা বাড়ানো ছাড়া খুব কম সময়ে অনলাইন বা অফলাইন এটাতেই আয় বাড়ানো সম্ভব না।

প্রশ্নঃ আমি কি সপ্তাহে চার হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারি?

উত্তরঃ আমাদের উল্লেখিত উপায় গুলো নিয়ে আপনি চিন্তা ভাবনা করলে এবং সঠিক দক্ষতার উপর যদি লক্ষ্য সুনির্দিষ্ট করেন তাহলে অবশ্যই সম্ভব। 

প্রতি সপ্তাহে টাকা আয় করা নিয়ে লেখকের শেষ কথা

অনলাইন বা অফলাইন ভিত্তিক প্রতি সপ্তাহে ৪ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করার জন্য যেটাই করি না কেন পরিশ্রমের কোন বিকল্প নেই।  পরিপূর্ণ চেষ্টা ও দক্ষতার সাহায্যে অবশ্যই আস্তে আস্তে ৪০০০ টাকা ছাড়াও আরো অনেক পরিমাণ টাকা ইনকাম করা সম্ভব। উল্লেখিত আর্টিকেলে আমরা এরকম অনেক উপায় জানিয়েছি। 

আর এই পেশা যেহেতু একটি স্বাধীন পেশা তাই আমরা চাপমুক্তভাবে টাকা আয় করতে পারি। আশা করি আজকের এই পোস্ট থেকে যারা বেকারত্তের সমস্যায় ভুগছেন তারা নিজেদের অবস্থার উন্নতির জন্য ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন। 2024112

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url